অনলাইনে কাজ শিখতে চাই, অনলাইনে কাজ শিখে আয় করব কিভাবে?

আমরা মূলত অনলাইনে আয় করার উদ্দেশ্যেই অনলাইনে কাজ শিখতে চাই। কারন, বর্তমান সময়ে অনলাইনে আয় করা অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তবে টাকা আয় করা কোন সহজ ব্যপার নয়। অনলাইনে আয় করার জন্য প্রথমে আপনার কিছু বিষয়ে প্রাথমিক ধারনা থাকতে হবে।  এই লিখাটি আপনাকে অনলাইনে কাজ শেখা থেকে শুরু করে আয় করে, স্বাবলম্বী হবার পথ দেখিয়ে দিতে সাহায্য করবে।

অনলাইনে কাজ করে বা ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করার জন্য, প্রথমে যে কোন অনলাইন ভিত্তিক কাজ শিখতে হবে। আপনি যদি কোন একটি  বিষয়ে ভালো ভাবে কাজ শিখেন এবং সে বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করেন, তবে মার্কেট প্লেসে কাজের অভাব হবে না। মার্কেটপ্লেসে হাজার রকমের কাজের ক্যাটাগরি রয়েছে। যেমন- ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, ওয়েব ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, এনিমেশন মেকিং, অ্যাপ মেকিং,  প্রোগ্রামিং, এস ই ও, কন্টেন্ট রাইটিং সহ আরও বিভিন্ন ধরনের কাজ। আপনি আপনার পছন্দ মত যে কোন কাজ ভাল ভাবে শিখে আয় করতে পারেন।

কিন্তু কথা হল, আপনি এই কাজগুলো কোথায় আর কিভাবে শিখবেন? হ্যাঁ বর্তমানে এই ধরনের কাজ শেখার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রতিষ্ঠান রয়েছে। নির্দিষ্ট ফি এর বিনিময়ে আপনি সেখানে কাজ শিখতে পারেন। এছাড়াও আপনি ইউ টিউব থেকেও কাজ শিখতে পারেন।  ফ্রিলেন্সিং কাজ শেখার জন্য আপনি ইউটিউবে  অনেক টিউটোরিয়াল পাবেন। তবে,কাজ শেখার জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাটাই সেরা। বর্তমানে এই ধরনের প্রতিষ্ঠান গুলো  অনলাইন এবং অফ লাইন, এই দুই পদ্ধতিতেই কাজ শেখায়। এই করোনা কালীন সময়ে অনলাইনে কাজ শেখা অনেক নিরাপদ। আপনি ঘরে বসে কম্পিউটার বা ল্যাপটপের মাধ্যমে খুব সহজেই কাজ শিখতে পারেন। এজন্য আপনার প্রয়োজন হবে অবিচ্ছিন্ন ইন্টারনেট সংযোগ।

ইন্টারনেট ব্যবহার করে যে ভাবে কাজ শিখবেন

আমরা জানি, ইন্টারনেট হচ্ছে তথ্যের ভান্ডার। কি নেই এই ইন্টারনেটে? সব  ধরনের তথ্যই কম বেশি ইন্টারনেটে রয়েছে। আপনি যদি এই ইন্টারনেটের  সঠিক ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আপনার কোন প্রাতিষ্ঠানিক সাহায্য লাগবে না। এক একথায় ইন্টারনেট হল একজন সর্ব জ্ঞানী শিক্ষকের মত।  যেকোন বিষয় শেখার জন্যই আপনি এই শিক্ষকের সাহায্য নিতে পারেন। শুধু মাত্র ইন্টারনেট বিল ছাড়া এখানে আপনার আর কোন টাকা খরচ হবে না।  আপনি যে বিষয়ে কাজ শিখতে চান সেটি লিখে সার্চ করলেই, সে বিষয়ে অসংখ্য ইংলিশ এবং বাংলা কন্টেন্ট বা টিউটোরিয়াল ভিডিও পেয়ে যাবেন। সেখান থেকে আপনার পছন্দের বিষয়টি শিখতে শুরু করতে পারেন।

এখানে আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, আপনি কোন বিষয় ইন্টারনেট থেকে খুঁজে বের করতে হলে আপনাকে “সার্চ”’ করা জানতে হবে। এমন অনেককেই দেখবেন খুব সহজ একটা বিষয় সে ইন্টারনেটে খুঁজে পাচ্ছেনা। কারন সে জানে না কিভাবে ট্যাকনিকেলি সার্চ করতে হয়। সেজন্যই আপনাকে আগে জানতে হবে কিভাবে সার্চ করতে হয়। কিভাবে আপনার কাংক্ষিত তথ্য  খুঁজে বের করবেন ইন্টারনেটের বিশাল দুনিয়া থেকে।

ফ্রিল্যান্সিং কি?

ফ্রিল্যান্সিং হল নিজের জ্ঞান, দক্ষতা, অভিজ্ঞতা ইত্যাদি পারিশ্রমিকের বিনিময়ে অন্যের কোন কাজ করে দেয়া। ধরুন,আপনার ঘরের বিদ্যুতের  লাইনে কোন সমস্যা হয়েছে। আপনি বিদ্যুতের কাজ জানেন না তাই আপনি কাজ জানে এমন কাউকে এনে লাইনটি পরিক্ষা করাবেন। যদি বিদ্যুতের লাইনে কোন সমস্যা থাকে সেই কাজ জানা লোকটি সেটা ঠিক করে দিবে এবং এর বিনিময়ে আপনি তাকে পারিশ্রমিক দিবেন। এখানে লোকটি আপনার যে কাজটি পারিশ্রমিকের বিনিময়ে আপনাকে করে দিল সেটাই হল লোকটির ফ্রিল্যান্সিং ।

ফ্রিল্যান্সিং একটি মুক্ত পেশা।এটি গতানুগতিক চাকরির বাইরে স্বাধীনভাবে কাজ করাই হল ফ্রিল্যান্সিং।  এখানে আপনাকে খবরদারি করার জন্য বা বস লেভেলের কেউ থাকবেনা। আপনার ইচ্ছে হল কাজ করবেন আর ভালো না লাগলে কাজ করবেন না। আমাদের দেশের তরুন বিশেষ করে ছাত্রছাত্রীদের কাছে ফ্রিল্যান্সিং দিনে দিনে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। পড়ালেখার পাশাপাশি তারা তাদের ভবিষ্যৎ ক্যারিয়ার গড়ে তুলছে।  ইন্টারনেটে অনেক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট আছে। যে ওয়েবসাইট গুলো ফ্রিল্যান্সিং সার্ভিস দেয়।  যাদেরকে বলা হয় “ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস”। এই মার্কেট প্লেসগুলোতে রেজিস্ট্রিশন করে সেখানে কাজ শুরু করতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সার কারা?  

এক কথায়, যারা ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করেন তারাই ফ্রিল্যান্সার। ইন্টারনেটের কল্যানে আপনি খুব সহজেই একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে পারেন। অনলাইনে আপনি আপনার পছন্দ মত সাইটে করে কাজ করতে পারেন।  এখানে রয়েছে কাজ করার স্বাধীনতা এবং কাজ বাছাই করার স্বাধীনতা। এখানে প্রতি মূহুর্তে নতুন নতুন কাজ আসছে। প্রোগ্রামিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েবডেভেলপমেন্ট, গেম মেকিং, 3D এনিমেশন ক্রিয়েট, প্রোজেক্ট ম্যানেজমেন্ট, সফ্টওয়্যার বাগ  টেস্টিং, ডাটা এন্ট্রি সহ বিভিন্ন রকম কাজ করে আপনি একজন সফল  ফ্রিল্যান্সার হিসেবে নিজেকে তৈরি করে নিতে পারেন।

ধৈর্য এবং কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে নিজেকে প্রস্তুত করে নিতে হবে। এই প্রতিবেদনটি তাই এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যাতে আপনি একজন নতুন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে নিজেকে সফলভাবে প্রকাশ করতে পারেন।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো

সাধারনত, উন্নত দেশগুলো তাদের কাজ গুলো কম মূল্যে করানোর জন্য আউটসোর্সিং করে থাকে। এশিয়ান দেশগুলো তাদের প্রধান টার্গেট। কারন এশিয়া মহাদেশের বেশিরভাগ দেশই অনুন্নত বা উন্নয়নশীল। তাই এখানকার ফ্রিল্যান্সাররা অন্য দেশের তুলনায় তুলনামূলক কম মুল্যে উন্নত দেশের ক্লাইন্টকে কাজ করে দেয়। ভারত এবং পাকিস্তান সেই সুযোগটিকে খুবই ভালভাবে কাজে লাগিয়েছে। ফ্রিল্যান্সিং এর দুনিয়ায় এ দুটি দেশের ফ্রিল্যান্সাররা রাজত্ব করছে। যদি আমরাও ফ্রিল্যান্সিং এর বিশাল বাজারের সামান্য অংশ কাজে লাগাতে পারি তাহলে এটিই হতে পারে আমাদের অর্থনীতি মজবুত করার শক্তিশালি ভিত্তি।

তাহলে এখন প্রশ্ন হল, কিভাবে কাজ শুরু করব?

কাজ শুরু করার আগে অবশ্যই আপনাকে যে বিষয়ে কাজ করতে চান সেই বিষয়গুলো ভালো ভাবে শিখতে হবে। তারপর মার্কেটপ্লেসে কাজ শুরু করতে পারেন। এখানে কিছু জনপ্রিয় মার্কেট প্লেসের লিংক দেয়া হল। এই মার্কেট প্লেস গুলো থেকে আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারেন।

এসব ওয়েবসাইটে যারা কাজ করানোর জন্য ফ্রিল্যান্সার খুঁজে তাদেরকে  Buyer বা Client বলে এবং যারা এই কাজগুলো তাদেরকে করে দেয় তাদেরকে বলা হয় freelancer বা Service Provider।  মার্কেট প্লেসের একটি কাজের জন্য অসংখ্য ফ্রিল্যান্সরা Bid বা আবেদন করে থাকে। এখানে তারা উল্লেখ করে দেয় যে কত টাকায় তারা এই কাজটি করে  দিবে। এখানে যতজন বিড করে তাদের মধ্য থেকে ক্লাইন্টের যাকে যোগ্য বা পছন্দ হয়, তাকে দিয়েই তার কাজটি করিয়ে নেয়। এক্ষেত্রে আপনাকে খুব সুন্দর করে একটি প্রোফাইল তৈরি করতে হবে। প্রোফাইল ইমেজ তৈরি করতে হবে। যা দেখে ক্লাইন্ট আপনাকে কাজ দিবে। তবে মনে রাখবেন কাজ পাওয়া কিন্তু খুব সহজ বিষয় নয়। কেউ কেউ মার্কেট প্লেসে একাউন্ট খোলার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই কাজ পেয়ে যায় আর কেউ মাসের পর মাস অপেক্ষা করেও কাজ পায় না। কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে আপনার কাজের পূর্ব অভিজ্ঞতা, টাকার পরিমান, বিড করার সময় এবং ক্লাইন্টের সাথে আপনার কনভারসেশন অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে। মার্কেট প্লেসে কাজ করার সুবিধা হল এখানে কাজ করে টাকা পাওয়ার নিশ্চয়তা ১০০%। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ কথা হল, ফ্রিল্যান্সিং করতে হলে কিন্তু অবশ্যই আপনার ইংরেজিতে ব্যাসিক নলেজ থাকতে হবে। না হয় কাজ করার ক্ষেত্রে বিভিন্ন সমস্যার সমক্ষিন হতে হবে। কারন, বেশির ভাগ ক্লাইন্ট দেশের বাইরের তাই এদের সাথে ইংরেজিতে কথা বলতে বা চেটিং এর মাধ্যমে কাজের বিষয়ে কনভারসেশন করতে হয়। ইংরেজি জানা না থাকলে যা সম্ভব না।

copy paste typing ফ্রিল্যান্সিং

অনলাইনে আয় করার বিভিন্ন পদ্ধতির মধ্যে কপি পেস্ট বা টাইপিং এর কাজটি সবচেয়ে দ্রুত শেখা এবং তা থেকে আয় করা যায়। ডাটা অ্যানলাইসিস ও ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এই দুটি কাজ সবসময় জনপ্রিয়।  সম্প্রতি এ দুটি খাতে কাজের চাহিদা বেড়েছে। এছাড়াও মাইক্রোসফট অফিস, ট্রান্সলেশন, কপি টাইপিং, ট্রান্সক্রিপশন, বুককিপিং, ই-মেইল হ্যান্ডেলিং, ডাটা স্ক্রেপিং ও কাস্টমার সাপোর্ট এই কাজগুলোও ডাটা এন্ট্রি বা কপি পেস্ট কাজের অন্তর্ভুক্ত। যাদের এ ধরনের কাজে দক্ষতা আছে, তারা চাইলে ফ্রিল্যান্সিং ক্ষেত্রে ভালো করতে পারে।

ফ্রিল্যান্সার ডটকমের তথ্য অনুযায়ী, গত প্রান্তিকে ডেটা অ্যানালিটিক্স ও ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট কাজের চাহিদা কয়েক গুন বেড়েছে। এটি প্রায় ৫৮.৯ ও ৫৫.৬ শতাংশ।আপনিও শুরু করতে পারেন copy paste typing ফ্রিল্যান্সিং জব শুরু করতে পারেন এই website এ প্রোফাইল তৈরি করে-

https://www.freelancer.com/jobs/copy-typing/

উপরের আলোচনা থেকে আমরা ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে জানতে পারলাম। তবে কোন মার্কেট প্লেসে কাজ করা ছাড়াও আরও একটি বিষয় থেকে আপনি ঘরে বসে স্থায়ীভাবে আয় করতে পারেন। সেটা হল, ওয়েব সাইট তৈরি করে তা থেকে আয়। তাহলে চলুন দেখা যাক কিভাবে একটি ওয়েব সাইট তৈরি করে তা থেকে আয় করবেন-

ওয়েবসাইট তৈরি করে আয়

ওয়েবসাইট তৈরি করার আগে আপনাকে জানতে হবে ওয়েবসাইট কি এবং কেন তৈরি করা হয়।

ওয়েবসাইট কি?

আপনি যখন কোন বিষয়ে জানার জন্য গুগলে সার্চ করেন, তখন অনেক পেজের লিঙ্ক আপনার সামনে আসে। সেই প্রত্যেকটি লিংক ক্লিক করলে একটি পেজ ওপেন হয়। এই পেজ গুলোই হল এক একটি ওয়েবসাইট। আপনি গুগলে কিছু আপলোড করতে চাইলে আপনার ওয়েবসাইট খুলতে হবে। ওয়েবসাইট বিভিন্ন ধরনের হয়। যেমন, ব্যবসায়িক ওয়েবসাইট, প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট, সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট, ব্লগ ইত্যাদি।

কোন ধরনের ওয়েবসাইট থেকে আয় করা যায়

ওয়েবসাইট বিভিন্ন রকমের হয়। সব ওয়েবসাইট থেকে কিন্তু আয় করা যায় না। আপনি যদি ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে চান তাহলে ব্লগ ক্যাটাগরির ওয়েব সাইট তৈরি করতে হবে। ব্লগ ওয়েবসাইট সবসময় আপডেট থাকে। প্রতিদিন নতুন নতুন ফিচার যুক্ত হয়। ব্লগে লেখালেখি করে আয় করা যায়। এ ধরনের ব্লগ ওয়েবসাইটে প্রচুর ভিজিটর থাকে।  তবে এক্ষেত্রে ওয়েবসাইটে এডসেন্স যুক্ত থাকতে হবে না হয় ইনকাম হবে না।

কিভাবে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করবেন

ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে ডোমেইন এবং হোস্টিং প্রয়োজন হবে।

প্রথমে আপনাকে একটি হোস্টিং কিনতে হবে এবং তারপর একটি ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন করে ওয়েবসাইট তৈরি হবে। ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনে সেখানে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে ওয়েবসাইট তৈরি করা যায় খুব সহজেই। একজন ওয়েব ডেভেলপার দিয়ে আপনি এ কাজটি সুন্দর ভাবে করিয়ে নিতে পারেন অথবা ঝামেলা এড়াতে চাইলে আপনি রেডি কোন ওয়েবসাইটও কিনে ফেলতে পারেন।

ওয়েবসাইট থেকে আয় করার বিভিন্ন পদ্ধতি

বিজ্ঞাপন থেকে আয়-  

যে ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বা ভিজিটর বেশি থাকে সেই ওয়েবসাইটের আয়ও বেশি। ওয়েবসাইটে বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপন দেখিয়ে সেখান থেকে আয় করা যায়। আপনার ওয়েবসাইটে যে কোম্পানির বিজ্ঞাপন দেখাবে সেই কোম্পানি আপনাকে টাকা দিবে।

ওয়েবসাইটে নিজের পন্য বিক্রি করে আয়-

আপনার ওয়েবসাইটে যদি ট্রাফিক বেশি থাকে তাহলে সেই ওয়েবসাইটে আপনার নিজের পন্য বিক্রি করে আয় করতে পারেন।

অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং করে আয়-

এখনকার সময়ে একটি জনপ্রিয় অনলাইন মার্কেটিং হল অ্যাফেলিয়েট মার্কেটিং। এটি করে আপনি খুব সহজেই আয় করতে পারেন। এখনকার সময়ে পেসিভ ইনকামের জন্য আফেলিয়েট মার্কেটিং সেরা।  অ্যাফেলিয়েট করা মানে হল, আপনার ওয়েবসাইটে আপনি অন্যের পন্য বিক্রি করে দিবেন এবং এর বিনিময়ে কমিশন পাবেন। তবে এর জন্য আপনার ওয়েবসাইটে পর্যাপ্ত কন্টেন্ট থাকতে হবে।

বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয়

ওয়েবসাইট ইংরেজি ছাড়াও  বিভিন্ন ভাষায় হয়ে থাকে। যেহেতু আমরা বাঙ্গালি তাই বাংলা ভাষায় বেশি অভিজ্ঞ। এজন্য বাংলা ভাষায় ওয়েবসাইট তৈরি করে আয় করা আমাদের জন্য সবচেয়ে সোজা। এছাড়াও যারা ইংরেজিতে দুর্বল, তারা বাংলা ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখান থেকে আয় করতে পারে। তবে বাংলা ভাষায় ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে আপনাকে বাংলা ভাষায় ভালো আর্টিকেল বা কন্টেন্ট  লিখতে জানতে হবে। মান সম্মত কন্টেন্ট লিখতে হবে, না হয় সাইটে ভিজিটর আসবে না। সাইটে ভালো ট্রাফিক থাকলে সেই সাইট থেকে  ৫০০০০ থেকে ৮০০০০ বা তার বেশিও আয় করা যায়।

বাংলা আর্টিকেল কি এবং কিভাবে লিখবেন?

গুগলে আমরা যখন কোন কিছু জানার জন্য সার্চ দেই তখন বাংলায় অনেক পেজ বা সাইট লিঙ্ক আসে। সেই লিংকগুলো ওপেন করলে যে লেখাগুলো বা তথ্যগুলো আসে সেগুলোই হল আর্টিকেল। এই আর্টিকেল গুলোও কিন্তু আমাদের মত কোন ব্লগার বা রাইটারের লেখা।

বাংলায় কোন বিষয়ে আর্টিকেল লিখতে হলে আপনাকে সেই বিষয়ে জানতে বা রিসার্চ করে লিখতে হবে। কোন লেখা অন্য সাইট থেকে কপি করা যাবে না। তাহলে গুগল লেখাটি গ্রহন করবে না। তাই লেখাটি হতে হবে ইউনিক। এছাড়াও আর্টিকেল লেখার আগে আপনাকে নিচের বিষয় গুলোর উপর নজর দিতে হবে।

  • প্রথমে কোন বিষয়ে আর্টিকেল লিখবেন সেই বিষয়টি নির্বাচন করুন।
  • বিষয়টি নিয়ে আপনার ভাল আইডিয়া থাকতে হবে।
  • তথ্য সংগ্রহ করতে হবে।
  • টার্গেটেড অডিয়েন্সকে মাথায় রেখে কন্টেন্ট লিখতে হবে।
  • আর্টিকেলগুলো তথ্যবহুল হতে হবে এবং তথ্যগুলো অবশ্যই সঠিক হতে হবে।
  • সুন্দর করে সাজিয়ে বাস্তব নিরেখে আর্টিকেল লিখতে হবে।
  • কোন ধরনের কপি করা কন্টেন্ট রাখা যাবে না।

যেভাবে বাংলা ওয়েবসাইট থেকে আয় করবেন

অন্যান্য ওয়েবসাইটের মত বাংলা ওয়েবসাইটেও পণ্য বিক্রি করে, বিভিন্ন পন্যের ব্যানার বিজ্ঞাপন বিক্রি করে আয় করা যায়। তবে বাংলা সাইট থেকে আয় করার সবচেয়ে সহজ উপায় হল, গুগল এডসেন্স যুক্ত করে আয়। তবে সাইটটি হতে হবে গুগল এডসেন্স ফ্রেন্ডলি। গুগল এডসেন্স যুক্ত করে আয় করতে চাইলে অবশ্যই এই বিষয় গুলোর প্রতি নজর দিতে হবে-

  • সাইটের কন্টেন্ট হতে হবে ইউনিক।
  • সাইটে পর্যাপ্ত ভিজিটর থাকতে হবে।
  • ইমেজগুলোও নিজে তৈরি করতে হবে। অথবা অন্য সাইট থেকে নিলে এডিট করে নিতে হবে।
  • ওয়েবসাইটকে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন করতে হবে। যেন কেউ সার্চ করে সে বিষয়টি যদি আপনার সাইটে থাকে, তাহলে আপনার সাইটিই যেন সার্চ রেজাল্টে চলে আসে।
  • সাইটে কমিউনিকেশন, আবাউট, প্রাইভেসি পলিসি, ইত্যাদি নীতিমালা যুক্ত করতে হবে।

বাংলা ওয়েবসাইট থেকে কেমন আয় হয়?

কোন সাইটের আয় নির্ভর করে সাইটের আর্টিকেলের সংখ্যা, মান এবং ভিজিটরের উপর। বাংলা ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রেও এর ব্যাতিক্রম নয়। এডসেন্স যুক্ত সাইটে যদি প্রতিদিন ২০০০ পেজ ভিউ হয়, সেই সাইট থেকে গড়ে ৫ থেকে ১০ ডলার আয় হতে পারে।

আয় করতে কেমন সময় লাগতে পারে?

কোন সাইট থেকে আয় করতে হলে সেই সাইটটিতে ভাল ভাবে সময় দিতে হবে। আপনি যদি সাইটে ৩০ দিনে ৩০ টি আর্টিকেল যোগ করতে পারেন তাহলে তা এডসেন্স যোগ করার উপযুক্ত হবে। এর পর সাইটে ভিজিটর বাড়তে শুরু করলে আপনার আয়ও শুরু হতে পারে। মোট কথা, নতুন একটি ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে প্রায় ৩ থেকে ৬ মাস লাগতে পারে।

পরিশেষে বলতে চাই, ওয়েবসাইট থেকে আয় করতে হলে আপনাকে ধৈর্য সহকারে অপেক্ষা করতে হবে। প্রথম অবস্থায় বেশি কাজ করলে পরে কম কাজ করলেও হবে। ধীরে ধীরে আয় বাড়তে থাকবে এবং শুধুমাত্র ব্লগিং করেই আপনি চাকরির শূন্যস্থানটি পূরণ করতে পারেন।

2 thoughts on “অনলাইনে কাজ শিখতে চাই, অনলাইনে কাজ শিখে আয় করব কিভাবে?”

Leave a Comment